Home জাতীয় তারের জঞ্জাল

তারের জঞ্জাল

রাজধানী ঢাকা এমনিতেই নানা সমস্যায় ভারাক্রান্ত কণ্টকিত জর্জরিত। ইতোমধ্যে বায়ুদূষণে বিশ্বে শীর্ষ স্থান দখল করেছে ঢাকা। পিছিয়ে নেই শব্দদূষণেও। এর পাশাপাশি রয়েছে চরম অব্যবস্থাপনা ও পরিকল্পনাহীনভাবে নির্মিত ওয়াসার পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন লাইন, গ্যাসের লাইন, টেলিফোনের লাইন, বিদ্যুতের তার সর্বোপরি যত্রযত্র খোঁড়াখুঁড়ি এবং প্রকট জলাবদ্ধতা- যেসব মহানগরীতে বসবাসকারীদের চরম দুর্ভোগ এবং ভোগান্তির অন্যতম কারণ। ঢাকাবাসীর দুর্ভোগ ও দুর্ভাগ্যের সূচনা প্রায় এর জন্মলগ্ন থেকেই। সত্যি বলতে কি একেবারেই অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছে এই মহানগরী। দিনে দিনে এর জনসংখ্যা বেড়েছে। এর সঙ্গে পাল্পা দিয়ে বেড়েছে ইমারত ও দালানকোঠা নির্মাণ, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, টেলিফোন, বিদ্যুতের খুঁটি ও তার, অধুনা ডিশ ও ইন্টারনেট সংযোগ এবং মেট্রোরেল নির্মাণের মহাযজ্ঞ। কোন কাজের সঙ্গেই কোন কাজের সমন্বয় নেই। ছিল না কোন কালেই এবং এখনও নয়। রাজধানীর ঢাকার প্রলম্বিত নোংরা ঘিঞ্জি বস্তির পাশেই গড়ে উঠেছে সুশোভিত সুসজ্জিত বহুতল ভবন ও অট্টালিকা, বিপণি বিতান, সুপার মার্কেট, সুপার মল। দুঃখজনক হলো সেই অনুপাতে গড়ে ওঠেনি নাগরিক সুযোগ-সুবিধা ও অবকাঠামো। তদুপরি রয়েছে মাথার ওপরে তারের জঞ্জাল। এও বহুবিধ, বহু রকমের। এর মধ্যে অধিকাংশই বিদ্যুতের খুঁটি ও তার এবং যত্রতত্র বসানো ট্রান্সফর্মার। যা নগরবাসীকে প্রতিমুহূর্তে প্রতিনিয়ত ঝুঁকির মুখে ফেলছে। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ও টেলিভিশনের জন্য অপরিহার্য ডিশ সংযোগের গুচ্ছ গুচ্ছ তার। যা এককথায় জঞ্জালের রূপ পরিগ্রহ করেছে। এতে একদিকে যেমন মহানগরী শ্রীহীন ও কদর্য হয়ে উঠেছে, অন্যদিকে নির্মল আকাশ দেখা থেকে বঞ্চিত করেছে ঢাকাবাসীকে।

অধুনা শুরু হয়েছে ঝড়-ঝঞ্ঝা বৃষ্টি ও কালবৈশাখীর মৌসুম। কখন কোথায় বিদ্যুতের তার খসে পড়ে, উপড়ে পড়ে বিদ্যুতের খুঁটি অথবা ভয়ঙ্কর শব্দে বিস্ফোরিত হয় ট্রান্সফর্মার কেউ তা বলতে পারে না। এ নিয়ে প্রতি বছর অনাকাক্সিক্ষত মৃত্যুর ঘটনাও ঘটছে পথচারীর। মহানগরীর অগ্নিকান্ডের একটি প্রধান কারণ বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট এবং ট্রান্সফর্মার বিস্ফোরণ। সেই সঙ্গে গ্যাসের লাইনে লিক এবং গ্যাস সিলিন্ডারের বিস্ফোরণ তো রয়েছেই। পুরান ঢাকার বিভিন্ন স্থানে রয়েছে বিভিন্ন বিপজ্জনক রাসায়নিক পদার্থের অবৈধ গুদাম ও কারখানা। সমস্যা সমাধানে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি, ঢাকা ইলেক্ট্রিক সাপ্লাই কোম্পানি সর্বোপরি পল্লী বিদ্যুত ২০১৬ সালে ভূগর্ভস্থ ক্যাবল লাইন স্থাপনের প্রকল্প হাতে নিলেও এ পর্যন্ত কাজ হয়েছে যৎসামান্য। ২০২৪ সালের মধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়নের কথা থাকলেও এর সুফল কবে নাগাদ পাবে নগরবাসী, তা বলতে পারে না কেউ। ফলে আপাতত সমূহ ঝুঁকি নিয়েই বসবাস করতে হবে ঢাকাবাসীকে। মেট্রোরেল সুশোভিত মহানগরীতে মাথার ওপরে ছড়িয়ে থাকা তারের জঞ্জাল অবিলম্বে ভূগর্ভে স্থানান্তর করা জরুরী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Check Also

সুইডেন-ফিনল্যান্ডের ন্যাটোর সদস্য হতে আবেদন

যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্যপদের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে আবেদন করেছে রা…