Home অপরাধ পাঁচ কোম্পানির এক-তৃতীয়াংশ লেনদেন

পাঁচ কোম্পানির এক-তৃতীয়াংশ লেনদেন

শেয়ারবাজারের লেনদেন আবর্তিত হচ্ছে গুটিকয়েক শেয়ারে।মঙ্গলবার প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইতে কেনাবেচা হয়েছে এক হাজার ৪৮০ কোটি টাকা মূল্যের শেয়ার। এর মধ্যে একক কোম্পানি হিসেবে লেনদেনের শীর্ষে থাকা পাঁচ কোম্পানিরই ৪৬৩ কোটি ৭৭ লাখ টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে, যা মোট লেনদেনের তিন ভাগের এক ভাগ। শেয়ারগুলো হলো- বেক্সিমকো লিমিটেড, ওরিয়ন ফার্মা, জেএমআই হসপিটাল রিকুইজিট, লাফার্জ-হোলসিম সিমেন্ট ও আইপিডিসি। গতকাল ঢাকার এ শেয়ারবাজারে ৩৭৭ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড কেনাবেচা হয়েছে।

বাজারসংশ্নিষ্টরা জানান, লেনদেনের এ চিত্র শুধু গতকালের নয়, সাম্প্রতিক সময়ে এভাবেই শেয়ার কেনাবেচা হচ্ছে। শুধু লেনদেন নয়, শেয়ারবাজার সূচক ও বিনিয়োগকারীদের মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতেও থাকছে শেয়ারগুলো। যদিও বাজার সূত্রগুলো বলছে, এসব শেয়ারের লেনদেনে সাধারণ ও নিয়মিত বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ খুবই কম। গুটিকয়েক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান নিজেরা এসব শেয়ার কেনাবেচা করছে।

গতকাল ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষ কোম্পানির লেনদেন ছিল মোটের সোয়া ৪৪ শতাংশ। লেনদেনের শীর্ষ ২০ কোম্পানির শেয়ার লেনদেনের পরিমাণ ছিল মোটের ৫৮ শতাংশ। লেনদেনের শীর্ষ ৫০ এবং ১০০ কোম্পানির লেনদেন ছিল মোটের সাড়ে ৭৭ শতাংশ এবং পৌনে ৮৯ শতাংশ।

গুটিকয়েক শেয়ারে ভর করে শেয়ার লেনদেন আবর্তিত হওয়ার প্রেক্ষাপটে অন্য অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারের লেনদেন হচ্ছেই না বলা চলে। ফলে ওইসব শেয়ার ক্রমাগত দর হারাচ্ছে। এরই মধ্যে ১২৯ শেয়ারের দর বেঁধে দেওয়া ফ্লোর প্রাইসে নেমে এসেছে। এ দরে এসব শেয়ারের ক্রেতাশূন্য অবস্থা তৈরি হচ্ছে। গতকালের ক্লোজিং প্রাইসের হিসাবে আরও ১১৪ কোম্পানির শেয়ার ফ্লোর প্রাইসের তুলনায় সর্বনিম্ন শূন্য দশমিক ১০ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ৫ শতাংশ বেড়ে কেনাবেচা হয়েছে। সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ পর্যন্ত দর বেড়ে কেনাবেচা হয়েছে ২৯২ শেয়ার।

এমন পরিস্থিতিতে ডিএসইতে ১২৯ কোম্পানির শেয়ারের দরবৃদ্ধির বিপরীতে ১০৮টির দর কমেছে। দর অপরিবর্তিত অবস্থায় বা ফ্লোর প্রাইসে কেনাবেচা হয়েছে ১৪০ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড। তালিকাভুক্ত মেয়াদি ৩৬ মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ৩৫টিই গতকাল ফ্লোর প্রাইসে কেনাবেচা হয়েছে।

গতকাল পাঁচ কোম্পানির শেয়ার সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দরে কেনাবেচা হয়েছে। এগুলো হলো- বিডি ল্যাম্পস, জুট স্পিনার্স, সোনালী আঁশ, সোনারগাঁও টেক্সটাইল ও ইউনিয়ন ক্যাপিটাল। স্বল্প মূলধনি এসব কোম্পানি দুর্বল মৌলভিত্তির কোম্পানি হিসেবে পরিচিত। আরও ১৩ কোম্পানির শেয়ার ৫ থেকে সাড়ে ৮ শতাংশ দর বেড়ে কেনাবেচা হয়েছে, যার সিংহভাগই দুর্বল মৌলভিত্তির।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Check Also

বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনার শুভ জন্মদিন

ঢাকা:জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ সন্তান শেখ হাসিনা। পিতার মত্যুর পর ব…