Home আজকের সংবাদ প্রবাসী অসুস্থ্য হারুনুর রশীদ কোথায়, ১২ বছরের মেয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে খুঁজছে বাবাকে
আজকের সংবাদ - ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২১

প্রবাসী অসুস্থ্য হারুনুর রশীদ কোথায়, ১২ বছরের মেয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে খুঁজছে বাবাকে

 

মাইফুল ইসলাম মাহি: প্রবাসী অসুস্থ্য হারুনুর রশীদ ঢাকায় ফেরার পর এয়ারপোর্ট থেকে ১ম স্ত্রী ও সন্তানের বাধা উপেক্ষা করে তাকে কৌশলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায় ২য় স্ত্রী। এরপর থেকে তার আর কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। অসুস্থ্য বাবার খোঁজে ১২ বছরের মেয়ে রাবেয়া সুলতানা ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ধর্ণা দিচ্ছেন। কোথাও না পেয়ে আর্তনাদ আহাজারি করতে থাকে। সহযোগীতায় এগিয়ে আসা অনেকেই শিশুটির করুণ আর্তনাদে চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি।
জানা যায়, হারুনুর রশীদ দীর্ঘদিন ধরে সৌদি প্রবাসী। সেখানে থাকাবস্থায় ৩/৪মাস পূর্বে হঠাৎ ব্রেইন স্ট্রোক করে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

পরবর্তীতে সুস্থতা বোধ করলে ১৩ ফেব্রæয়ারী বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টায় দেশে ফেরেন। এসময় তার প্রথম স্ত্রী রোকেয়া বেগম সন্তানসহ তাকে নেয়ার জন্য শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবস্থান করছিলেন। কিন্তু কৌশলে হারুনুর রশীদ এর ২য় স্ত্রী ফারহানা ও ছোট বোন পারুল বেগমসহ আরো বেশ কিছু লোকজন মিলে বিমানবন্দরের ৮নং গেইট দিয়ে গোপনে হারুনকে নিয়ে যেতে দেখে প্রথম স্ত্রী ও তার সন্তান রাবেয়া তাদেরকে বাধা দেয় এবং কোথায় নিয়ে যাচ্ছে জানতে চাইলে কোন উত্তর না দিয়ে জোড়পূর্বক নিয়ে যায়। পরবর্তীতে তাদের সাথে যোগাযোগ করলে নানা হুমকি ধামকি অব্যাহত রাখে। একপর্যায়ে তারা জানায় হারুনুর রশীদকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কিন্তু কোন হাসপাতালে ভর্তি করেছেন তা জানাতে অস্বীকৃতি জানায়। এরপর থেকে বিভিন্ন হাসপাতালে অসুস্থ্য বাবাকে খুঁজে ফিরছেন ১২ বছরের কন্যা রাবেয়া সুলতানা। কোথাও খুঁজে না পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পরে আহাজারি করতে থাকে শিশুটি।
শিশু রাবেয়া সুলতানা বলেন, আমি আমার বাবাকে ফেরৎ চাই। আমি তার কাছে যাবো। আপনারা আমার বাবার কাছে নিয়ে যান।

১ম স্ত্রী রোকেয়া বেগম বলেন, আমার মেয়ে তার বাবাকে দেখার জন্য উদগ্রিব হয়ে কান্নাকাটি করছে। স্বামীর সেবাযতœ করার জন্য সব হাসপাতালে খুঁজেছি কোথাও পাইনি। আসলে আমার স্বামীর নিজ গ্রাম নোয়াখালির সোনাইমুড়িতে বাড়িঘর ও সম্পত্তি রয়েছে। এছাড়াও গাজীপুর জেলঅর বাসন থানার কামারজুড়িতে জমিসহ ৪তলা বাড়ি, শিমুলতলী, মারতা ও শ্রীপুরে ক্রয়কৃত সম্পত্তি রয়েছে। আমার সতিন ও তার সাথে কয়েকজন সংঘবদ্ধ লোক সেসব স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি আত্মসাৎ করার জন্য তাকে এয়ারপোর্ট থেকে জোড়পূর্বক নিয়ে গিয়ে আতœগোপনে রেখেছে। আমার ২ ছেলে ও ১ মেয়ে এখন পিতৃ¯েœহ ও অধিকার থেকে বঞ্চিত। ইতোমধ্যে সন্তানদের পৈত্রিক অধিকার আদায়ের জন্য আমি ১৪ ফেব্রæয়ারী নোয়াখালির সোনাইমুড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ করেছিএবং ১৬ ফেব্রæয়ারী ঢাকার বিমানবন্দর থানায় সাধারণ ডাইরী করেছি।

এ ব্যাপারে নোয়াখালির সোনাইমুড়ি থানা ও ঢাকা বিমানবন্দর থানায় যোগাযোগ করা হলে অভিযোগ ও জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Check Also

গুরুতর অসুস্থ ভ্লাদিমির পুতিন ব্রিটিশ গুপ্তচরের দাবি‌

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ‘গুরুতর অসুস্থ’ বলে দাবি করেছেন ব্রিটেনের সাবেক গুপ্তচ…