Home লাইফ স্টাইল ৬০ বছর বয়সে ৫০ কেজি ওজন কমিয়ে এখন তিনি সুপারমডেল

৬০ বছর বয়সে ৫০ কেজি ওজন কমিয়ে এখন তিনি সুপারমডেল

মাথার সব চুল-দাড়ি সাদা। শারীরিক গঠন নিরেট, মনোবলও অটল। তাই তো আত্মবিশ্বাস নিয়ে র‌্যাম্পে হাঁটেন তিনি। র‌্যাম্পে তার চলন-বলন ও স্টাইল দেখে মুগ্ধ সকলে। দীনেশ মোহন’র কথা বলা হচ্ছে। প্রকৃত অর্থে তিনি প্রমাণ করলেন যে, বয়স কখনো বাঁধা হতে পারে না। আত্মবিশ্বাসই সব। বর্তমানে তার বয়স ৬০ বছর।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বর্তমানে বেশ জনপ্রিয় তিনি। তার সফলতায় এটাই স্পষ্ট হচ্ছে, জীবন শুরু হয় চল্লিশের পর থেকেই। সম্প্রতি দীনেশ ‘হিউম্যানস অব বম্বে’-তে তার জীবন কাহিনী শেয়ার করেছেন।

জানিয়েছেন, প্রিয় মানুষকে হারিয়ে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলেন, একদমই চুপচাপ হয়ে গিয়েছিলেন। সাইকিয়াট্রিস্টের দ্বারস্থও হয়েছিলেন তিনি। এ ক্ষেত্রে তাকে সহযোগিতা করেছেন তার বোন। এই সময় বাসায় সারাদিন ফ্রিজ খুলে খাবার খেতেন দীনেশ। ওজন হয়ে যায় ১৩০ কেজি। ওজন এই পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় বিছানা থেকে উঠে দাঁড়াতে সহায়তা নিতে হতো অন্যের। কোনও কিছুই ভালো লাগতো না তার। হঠাৎ এক আত্মীয় বলে, ‘কিছু তো কর! বিছানায় শুয়ে থাকতে থাকতেই কি মরতে চাস!’ আর এ কথায় জীবন নতুন মোড় নেয় তার। নিজেই ডায়েটেশিয়ানের কাছে যান। নিয়মিত শারীরিক ব্যায়াম করেন। ৫০ কেজি ওজন কমান।

দীনেশের এক বন্ধু নামকরা ফ্যাশন ম্যাগাজিনে কাজ করেন। হঠাৎ একদিন দীনেশকে না জানিয়ে তার ‘আগে-পরে’র ছবি পোস্ট করেন। সেখান থেকেই ফটোগ্রাফার থেকে শুরু করে মডেলিং এজেন্সির সকলে ফোন করতে থাকেন। তাকে র‌্যাম্পে হাঁটতে দেখে পরিবারের সকলে থ হয়েছিলেন বলেও জানিয়েছেন। নতুন করে বাঁচতে শুরু করেন। নতুনদের কাছে অনুপ্রেরণা হয়ে প্রশংসাও লাভ করছেন দীনেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

ড. ইউনূসের ব্যাংক হিসাব তলব

নোবেলজয়ী একমাত্র বাংলাদেশি ও গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ড. মুহম্মদ ইউনূসের ব্যাংক হিসাবে…